আইপিএল পয়েন্ট তালিকা – প্লে অফ টিমের ভবিষ্যদ্বাণী এবং তাদের বর্তমান ফর্ম

আইপিএল পয়েন্ট তালিকা

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল) এর ১৭তম মৌসুমের খেলা এসে পৌঁছেছে শেষ পর্যায়ে। ইতিমধ্যেই ৫৬টি ম্যাচ খেলা হয়ে গিয়েছে আইপিএল টুর্নামেন্টের। আইপিএল ২০২৪ টুর্নামেন্টের অর্ধেকাংশ ইতোমধ্যেই সমাপ্ত হয়েছে। প্লে অফে উঠার লড়াইতে অনেকেই হয়েছে সফল। কিংবা অনেক দলকে এখনও যেতে হবে জটিল সমীকরণ এর মধ্য দিয়ে। আজকের নিবন্ধে আইপিএল পয়েন্ট তালিকা কিরূপ সেটি বিশ্লেষণ করা হবে।

এছাড়াও বিশ্লেষণপূর্বক আলোচনা করা হবে কোন চারটি দল শেষ চার পর্যন্ত নিজেদের টিকিয়ে রাখতে পারে সে বিষয়ে।

আইপিএল পয়েন্ট তালিকা বোঝা

আজকের আইপিএল পয়েন্ট তালিকা লক্ষ্য করলে দেখা যায়, তালিকার শীর্ষ স্থানে রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স; যারা সর্বমোট ১১টি ম্যাচ খেলেছে এবং ৮টি ম্যাচে জয়লাভ করেছে। তাদের পয়েন্ট সংখ্যা ১৬ যেটি প্লে অফে সুযোগ পাওয়ার জন্য যথেষ্ট।

পয়েন্ট তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা রাজস্থান রয়্যালস সর্বমোট ১১টি ম্যাচ খেলেছে এবং জয় পেয়েছে ৮টি ম্যাচে। কলকাতা এবং রাজস্থান উভয়ের পয়েন্ট সংখ্যা ১৬ হওয়ার সত্বেও নেট রানরেটের দিক থেকে এগিয়ে থাকার কারণে শীর্ষে অবস্থান করছে কলকাতা।

উল্লেখ্য কলকাতার নেট রান রেট +১.৪৫৩ এবং রাজস্থান রয়্যালস এর নেট রান রেট +.৪৭৬।

পয়েন্ট তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস, যারা সর্বমোট ১১টি ম্যাচ খেলেছে এবং ৬টি ম্যাচে জয় পেয়েছে। চেন্নাই সুপার কিংসের পয়েন্ট সংখ্যা ১২। তালিকার চতুর্থ অবস্থানে থাকা দল সানরাজার্স হায়দ্রাবাদও ১১ ম্যাচ খেলে ৬টি ম্যাচে জয় পেয়ে চেন্নাই এর সমপরিমাণ পয়েন্টে রয়েছে।

নেট রান রেটের দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস।

পয়েন্ট তালিকায় পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে দিল্লি ক্যাপিটালস, ১২ ম্যাচ খেলে ৬টি ম্যাচে জয় পেয়েছে তারা। দিল্লির পয়েন্ট সংখ্যা ১২।

ষষ্ট অবস্থানে থাকা লখনউ সুপার জায়েন্টস ১১টি ম্যাচ খেলে ৬টি ম্যাচে জয় পেয়ে ১২ পয়েন্ট অর্জন করেছে।

পয়েন্ট তালিকায় রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু ১১টি ম্যাচের ৪টিতে জয় পেয়ে ৮ পয়েন্টের সাথে রয়েছে সপ্তম অবস্থানে।

পাঞ্জাব কিংস ১১ম্যাচ খেলে ব্যাঙ্গালুরুর সমপরিমাণ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে অষ্টম অবস্থানে।

নবম অবস্থানে থাকা মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স সর্বমোট ১২টি ম্যাচ খেলেছে যেখানে তারা ৪টি ম্যাচে জয় পেয়েছে।

পয়েন্ট তালিকায় সর্বশেষ অবস্থানে রয়েছে গুরজাট টাইটানস যারা ১১টি ম্যাচে ৪টিতে জয় পেয়েছে।

প্লেঅফ টিমের পূর্বাভাস

উপরে আইপিএল ২০২৪ এর পয়েন্ট তালিকার বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। এই পর্যায়ে পয়েন্ট তালিকার বর্তমান অবস্থার ভিত্তিতে আইপিএলে কোন চারটি দল প্লে অফ পর্যন্ত খেলতে পারে সেটির ভবিষ্যদ্বাণী করা হবে।

আইপিএলে প্রত্যেকটি দল খেলবে সর্বমোট ১৪টি ম্যাচে। পয়েন্ট তালিকায় প্রথম এবং দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা নাইট রাইডার্স এবং রাজস্থান দল ম্যাচ খেলেছে ১১টি করে। যেখানে দুটি দল ৮টি করে ম্যাচ জিতেছে এবং তাদের রয়েছে ১৬ পয়েন্ট।

এক্ষেত্রে দুটি দলের প্লে অফ খেলার সম্ভবনা শতভাগ রয়েছে।

তবে রাজস্থান এবং নাইট রাইডার্স যদি আর কেবল একটি ম্যাচে জয় পায় তাদের প্লে অফ নিশ্চিত।

অন্যদিকে, চেন্নাই, হায়দ্রাবাদ, দিল্লী এবং লখনউ ৬টি করে ম্যাচ জিতেছে এবং তাদের পয়েন্ট সংখ্যা ১২।

শুধুমাত্র দিল্লী বাকি তিন দলের তুলনায় একটি ম্যাচ বেশি খেলেছে।

এক্ষেত্রে চেন্নাই এবং হায়দ্রাবাদ যদি দুটি ম্যাচে জয় পায় তবে তাদের প্লে অফ অনেকটাই নিশ্চিত।

দিল্লি এবং লখনউকে তাদের তিনটি ম্যাচে জয় পাওয়ার সাথেই নজরে রাখতে হবে নেট রান রেটের হিসাবকে।

অন্যদিকে পয়েন্ট তালিকায় থাকা বাকি চার দল ব্যাঙ্গালুরু, পাঞ্জাব, মুম্বাই এবং গুজরাট দলের পয়েন্ট সংখ্যা ৮।

মুম্বাই বাদে বাকি তিনটি দল খেলেছে ১১টি ম্যাচে।

এক্ষেত্রে মুম্বাই তাদের বাকি দুটি ম্যাচে জয় পেলে তাদের পয়েন্ট হবে ১২। যেটি প্লে অফে সুযোগ পাওয়ার জন্য উপযুক্ত নয়।

অন্যদিকে বাকি তিনটি দল যদি তাদের শেষ তিন ম্যাচে জয় পায় তবে তাদের পয়েন্ট হবে ১৪।

এক্ষেত্রে অসংখ্য জটিল সমীকরণের মধ্য দিয়ে যেতে হবে তাদের।

দল বিশ্লেষণ আইপিএল পয়েন্ট তালিকা অনুযায়ী

আইপিএলে পয়েন্ট তালিকা দেখে স্পষ্ট ভবিষ্যদ্বাণী করা সম্ভব। পয়েন্ট তালিকা বিশ্লেষণ করে বলা যেতে পারে ২০২৪ আইপিএলে প্লে অফ খেলতে পারে কলকাতা, রাজস্থান, চেন্নাই এবং হায়দ্রাবাদ। চেন্নাই এবং হায়দ্রাবাদ তাদের শেষ তিন ম্যাচের দুটিতে জয় পেলেই তারা অনেকটা নিশ্চিতভাবে প্লে অফে খেলার সুযোগ পাবে।

প্লেঅফ ভবিষ্যদ্বাণীগুলিকে প্রভাবিত করা কারণগুলি

একটি টুর্নামেন্টের ভবিষ্যৎবাণীকে বেশ কয়েকটি কারণ প্রভাবিত করে থাকে। নিচে কয়েকটি কারণ উল্লেখ করা হলো যেগুলো আইপিএলের প্লে অফ ভবিষ্যদ্বাণীকে প্রভাবিত করতে সক্ষম।

১. খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স

খেলোয়াড় কিংবা দলের পারফরম্যান্সের উপর নির্ভর করে একটি দল প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করবে কিনা সেটি।

আর তাই প্রতিযোগিতার দিন উক্ত দলের খেলোয়ারদের পারফরমেন্স কিরূপ সেটির উপর ম্যাচের প্রেডিকশন অনেকটাই নির্ভর করে থাকে। এক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের ফর্মে না থাকা একটি বড় কারণ।

২. আবহাওয়া এবং পিচ

প্রতিযোগিতার দিন আবহাওয়া এবং পিচ এর অবস্থার উপর একটি ম্যাচের ফলাফল অনেকটা নির্ভর করে থাকে।

উদাহরণস্বরূপ বেটিং কিংবা বোলিং পিচ উভয়ের ক্ষেত্রে ভিন্ন খেলার কৌশল অবলম্বন করা হয়।

আর তাই ম্যাচের ভবিষ্যদ্বাণীর উপর আবহাওয়া এবং পিচ এর অবস্থার প্রভাব পড়তে পারে।

৩. টস

যদিও এটা মনে করা হয় না টস হারলেই ম্যাচ হেরে যাওয়া হয়। তবে টস অনেকক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে ম্যাচের ফলাফলের ক্ষেত্রে।

আর তাই আইপিএলের ম্যাচের ভবিষ্যদ্বাণীর ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তারকারী একটি বিষয়বস্তু টস।

৪. দর্শকদের উপস্থিতি

দর্শকদের উপস্থিতি একটি দলের আত্মবিশ্বাস কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিয়ে থাকে। আর তাই ম্যাচে জয়ের ক্ষেত্রে দর্শকদের অনুপ্রেরণা একটি বিশেষ লক্ষণীয় বিষয়।

আইপিএলের ম্যাচে ভবিষ্যদ্বাণীতে প্রভাব বিস্তার করতে পারে মাঠে দর্শকদের উপস্থিতি।

এই কয়েকটি বিষয় আইপিএলের ম্যাচের ভবিষ্যদ্বাণী করার ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম।

উপসংহার

আজকের নিবন্ধে আইপিএল পয়েন্ট তালিকা নিয়ে বিস্তারিত বিশ্লেষণ করা হলো এবং বিশ্লেষণের ভিত্তিতে একটি ভবিষ্যদ্বাণী করা হলো।

তবে আর্টিকেলে উল্লেখিত দলগুলো নিশ্চিত প্লে অফ খেলবে সেটির কোন নিশ্চয়তা নেই। এটি কেবল একটি ভবিষ্যদ্বাণী। আপনার মতে আইপিএলের প্লে অফ খেলবে কোন চার দল সেটি আমাদের মন্তব্য করে জানিয়ে দিতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *