রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু এর আইপিএল ২০২৪-এ ব্যর্থতার কারণ

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু

ভারতের জামজমকপূর্ণ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট আইপিএল এর ২০২৪ আসরের খেলা শুরু হয়েছে বেশ কয়েকদিন আগেই। যেখানে ইতিমধ্যে প্রায় ৫৩টি ম্যাচ খেলা শেষ হয়েছে। ২০২৪ আসরে আইপিএলের অন্যতম ব্যর্থ দলগুলোর মধ্যে একটি রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দল। আইপিএল ইতিহাসে একটিও ট্রফি অর্জন করতে সক্ষম হয়নি বিরাট কোহলির আরসিবি।

২০২৪ আইপিএল আসরে শুরু থেকেই হার দিয়ে যাত্রা শুরু হয় আরসিবির। তবে বিগত কয়েক ম্যাচে জয় পেয়ে বর্তমানে ১১ ম্যাচের ৪টিতে জয় পেয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার সপ্তম অবস্থানে রয়েছে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। গতদিন গুজরাট টাইটানস এর কাছে হারলেই প্লে অফ খেলার সবধরনের সমীকরণ থেকে বাদ পড়ে যেত আরসিবি। তবে গতদিনের জয়ে কিছুটা হলেও প্লে অফ খেলার আশা বাঁচিয়ে রেখেছে আরসিবি।

এক্ষেত্রে আইপিএল প্লে অফ খেলতে হলে আরসিবির জয় পেতে হবে শেষ তিনটি ম্যাচে। প্রত্যেকটি ম্যাচে জয় পেলে আরসিবির পয়েন্ট হবে ১৪, যেটি কিছুটা সম্ভবনা বাঁচিয়ে রাখতে পারে বিরাট কোহলিদের জন্য। তবুও হিসাব করতে হতে পারে জটিল সমীকরণ। কেননা পয়েন্ট তালিকায় ৭ ম্যাচে জয় পেয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। পয়েন্ট তালিকায় তৃতীয় এবং চতুর্থ অবস্থানে থাকা লঙ্খ সুপার জায়েন্টস এবং সংরাইজার্স হায়দ্রাবাদের রয়েছে ১২ পয়েন্ট। চেন্নাই সুপার কিংস ১০ পয়েন্ট নিয়ে অবস্থান করছে পঞ্চম অবস্থানে এবং অনুরূপ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে দিল্লি। পরবর্তী অবস্থানে থাকা আরসিবির পয়েন্ট কেবল ৮। আর তাই ২০২৪ আইপিএলেও ব্যর্থ রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দল।

আজকের পর্বে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দলের ব্যর্থতার কয়েকটি প্রধান কারণ সম্পর্কে আলোচনা করা হবে।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু এর ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের অভাব

২০২৪ আইপিএলে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ব্যর্থতার সবচেয়ে বড় কারণ দলের খেলোয়াড়দের ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের অভাব। একটি দলের জয় অনেকটাই নির্ভর করে থাকে উক্ত দলের প্রতিটি খেলোয়াড়দের ধারাবাহিক পারফরম্যান্স এবং ফর্মের উপর। যে দলের খেলোয়াড় পারফরম্যান্সের দিক থেকে যত বেশি ধারাবাহিক উক্ত দলের জয়ের সম্ভবনা ঠিক ততটুকুই বেশি থাকে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়; রাজস্থান রয়্যালসের দলের কথা।

২০২৪ আইপিএলে ৮টি ম্যাচে জয় পেয়ে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার প্রথম অবস্থানে রয়েছে রাজস্থান রয়্যালস।

রাজস্থান রয়্যালস দল কেবল দুটি ম্যাচে হেরেছে। ২০২৪ আইপিএলে প্লেঅফ অনেকটাই নিশ্চিত করেছে তারা।

তাদের জয়ের অন্যতম বড় কারণ ধারাবাহিক পারফরম্যান্স।

রাজস্থান রয়্যালসের প্রতিটি খেলোয়াড় তাদের পারফরম্যান্সের দিক থেকে ধারাবাহিক।

আর তাই রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর হারের অন্যতম বড় কারণ উক্ত দলের প্রতিটি খেলোয়াড়দের ধারাবাহিক পারফরম্যান্স এর অভাব।

দলের অন্যতম সেরা ব্যাটার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ২০২৪ আইপিএলে ব্যর্থ।

যার কারণে ব্যাটিং বিপর্যয়ে আরসিবি দল। এছাড়াও বোলিং পর্যায়ে ধারাবাহিকতার সবচেয়ে বড় অভাব বিদ্যমান রয়েছে।

দল গঠন এবং নির্বাচন

আইপিএলে একটি দল কতদূর পর্যন্ত এগিয়ে যেতে পারে সেটা অনেকটাই নির্ভর করে দল গঠন এবং খেলোয়াড়ের নির্বাচনের উপর। আর তাই আইপিএল শুরুর পূর্বেই খেলোয়াড়দের নির্বাচন করে দল গঠন করা লিস্ট দেখেই অনেকে অনুমান করে নিতে পারে আইপিএলে কোন দল রাজ করতে সক্ষম।

২০২৪ আইপিএলে আরসিবি দলের ফ্র্যাঞ্চাইজি সংগঠন সবচেয়ে ব্যর্থ দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে।

খেলোয়াড়দের সঠিক নির্বাচনের উপর নির্ভর করে একটি দল কতটুকু সঠিকভাবে গঠন করা সম্ভব সেটি।

আর তাই এটিকে ব্যাঙ্গালুরু দলের ব্যর্থতার একটি বড় কারণ হিসেবেই চিহ্নিত করা যায়।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু এর বোলিংয়ে গভীরতার অভাব

২০২৪ আইপিএল আসরে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দলের অসফলতার পেছনে সবচেয়ে বড় দায়ী বোলিং ডিপার্টমেন্ট।

বিগত আইপিএল আসরেও ব্যাঙ্গালুরু দলে বোলিং গভীরতার অভাব লক্ষ্য করা যায়।

বর্তমান আসরে আরসিবি দলের অন্যতম সমস্যার কারণ বোলারদের ধারাবাহিক পারফরম্যান্স এর অভাব।

মোহাম্মদ সিরাজ, ইয়াশ দয়াল, বিজয় কুমার, ক্যামেরন গ্রীন কেউই তাদের জায়গা থেকে পারফরম্যান্সের গভীরতা বের করে আনতে সক্ষম হয়নি। ফলে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দলের বোলিং পর্যায়ে বিপর্যয়ের মুখে। আইপিএলের বিগত মৌসুমগুলোতে আরসিবি দলের পারফরম্যান্স পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, বোলিং গভীরতার কারণেই ম্যাচ হেরেছে ব্যাঙ্গালুরু।

২০২৪ আইপিএল ব্যার্থতার পেছনের বড় কারণ হিসেবেই এটিকে বিবেচনা করা যায়।

মূল খেলোয়াড়দের উপর অতিরিক্ত নির্ভরতা

যেকোন প্রতিযোগিতায় একটি দলের জয়ের পেছনে প্রতিটি খেলোয়াড়দের সমান অবদান রাখা আবশ্যক।

নির্দিষ্ট কিছু খেলোয়াড়ের উপর নির্ভর করে ম্যাচের ফলাফল আশা করা যায় না।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুর ব্যর্থতার আরেকটি বড় কারণ মূল খেলোয়াড়দের কিংবা সিনিয়র খেলোয়াড়দের উপর অতিরিক্ত নির্ভরতা। বিরাট কোহলি, ফাফ ডু প্লেসিস, মোহাম্মদ সিরাজ, ক্যামেরন গ্রীনদের মত খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্সের উপর অনেকটা নির্ভর রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর ম্যাচের ফলাফল।

আর তাই প্রতিটি খেলোয়াড়ের সমন্বয়ের অভাব আরসিবি দলকে একটি ম্যাচে জয় পাওয়া থেকে ছিটকে দেয়।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু এর কৌশলগত ত্রুটি

বলা হয়ে থাকে কৌশল বা পরিকল্পনা যত মজবুত হয়, একটি প্রতিযোগিতায় জয়লাভ করার সম্ভবনা তত বেশি হয়। ম্যাচের পূর্ববর্তী কৌশলগত পরিকল্পনা একটি ম্যাচ জয়ের ক্ষেত্রে অনেকটুকু অবদান রাখে।

রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর খেলোয়াড়দের মধ্যকার কৌশলগত ত্রুটি তাদের ধারাবাহিক হারের একটি কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা যায়।

ব্যাঙ্গালুরু দলের খেলোয়াড়দের সমন্বয় এবং বোঝাপড়ার অভাব তাদের কৌশলগত ত্রুটির পেছনের মূল কারণ হতে পারে।

এই তাই ব্যাঙ্গালুরু দলের কৌশলগত পরিকল্পনার দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে।

অভ্যন্তরীণ জটিলতা

একটি অভ্যন্তরীণ জটিলতা খেলার মাঠে বিরূপ প্রভাব ফেলে থাকে। টিম ম্যানেজমেন্ট এবং দলের খেলোয়াড়দের প্রত্যেকের মধ্যকার সম্পর্ক ক্রিকেটে অত্যন্ত জরুরি।

অভ্যন্তরীণ বোঝাপড়া যত ভালো হতে পারে, দলের প্রতিটি খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স ততটাই সমৃদ্ধ হবে।

এই তাই আরসিবি দলের ম্যানেজমেন্ট কতৃপক্ষের অবশ্যই অভ্যন্তরীণ জটিলতার ব্যাপারে অবগত থাকতে হবে।

উপসংহার

আইপিএল ট্রফি যেন সোনার হরিণ; যাকে অর্জন করার জন্য লড়াই করে ৮-১০টি দল।

তবে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু দলের জন্য এখনও সেই সুযোগ হয়নি যেখানে তারা আইপিএল ট্রফি অর্জন করতে পারে।

বিরাট কোহলিদের এই ব্যর্থতা দূর করার ক্ষেত্রে উল্লেখিত বিষয়গুলো সম্পর্কে নজর দেওয়া অত্যধিক জরুরি। আরসিবির ব্যর্থতা নিয়ে আপনাদের কিরূপ মতামত, সেটি আমাদের জানিয়ে দিতে পারেন মন্তব্য করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *