রাহুল দ্রাবিড়ের স্থলাভিষিক্ত ঘোষণা করেছে বিসিসিআই

রাহুল দ্রাবিড়ের

রাহুল দ্রাবিড়ের বর্তমান চুক্তি ২০২৩ সালের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপের পরে শেষ হবে। দ্রাবিড় এখনও তার ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে কোনও সিদ্ধান্ত নেননি।

তিনি যদি টিম ইন্ডিয়া ছেড়ে চলে যান, তাহলে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) একজন নতুন প্রধান কোচের সন্ধানে যাবে।

দ্রাবিড় ২০২১ সালে ভারতীয় দলের প্রধান কোচ হিসেবে নিযুক্ত হন। তিনি রবি শাস্ত্রীর স্থলাভিষিক্ত হন। দ্রাবিড়ের অধীনে ভারতীয় দল ভালো পারফরম্যান্স করেছে। দলটি টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে সাফল্য পেয়েছে।

তবে, দ্রাবিড় প্রধান কোচের ভূমিকায় অনিচ্ছুক ছিলেন বলে জানা গেছে। তিনি প্রথমে এই পদে নিযুক্ত হতে চাননি। তাকে সৌরভ গাঙ্গুলী নেতৃত্বাধীন বিসিসিআই বোর্ডে যোগদানের জন্য রাজি করাতে হয়েছিল।

বিসিসিআই এখনও পর্যন্ত দ্রাবিড়ের পদত্যাগের বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি।

 তবে, কয়েকটি প্রতিবেদন অনুসারে, বিশ্বকাপের পরে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ভারতের দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টি সিরিজ চলাকালীন ভিভিএস লক্ষ্মণ প্রধান কোচের ভূমিকা গ্রহণ করবেন।

দ্রাবিড় একটি সংক্ষিপ্ত বিরতি নেবেন এবং কি করবেন তা নিয়ে ভাবতে পারেন।

রাহুল দ্রাবিড়ের ভবিষ্যত অনিশ্চিত, লক্ষ্মণ অন্তর্বর্তী প্রধান কোচ

রাহুল দ্রাবিড়ের অনিশ্চয়তার মধ্যে, বিসিসিআই ভিভিএস লক্ষ্মণকে ভারতের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ করেছে।

লক্ষ্মণ দ্রাবিড়ের প্রাক্তন সতীর্থ এবং ন্যাশনাল ক্রিকেট একাডেমির (এনসিএ) ক্রিকেটের পরিচালক।

লক্ষ্মণ একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার এবং কোচ। তিনি ভারতীয় দলের হয়ে ৯০ টেস্ট এবং ২৩০ ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছেন।

তিনি এনসিএতে দীর্ঘদিন ধরে কোচিং করছেন এবং তিনি ভারতীয় দলের ব্যাটিং দক্ষতা উন্নত করতে সাহায্য করেছেন।

লক্ষ্মণ ভারতের অন্তর্বর্তীকালীন প্রধান কোচ হিসেবে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে আসন্ন টি-টোয়েন্টি সিরিজের দায়িত্ব পালন করবেন।

তিনি ২০২৩ সালের আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ পর্যন্ত এই পদে থাকবেন।

রাহুল দ্রাবিড়ের সাপোর্ট স্টাফের ভবিষ্যত

রাহুল দ্রাবিড়ের চুক্তি শেষ হলে তার সাথে থাকা সাপোর্ট স্টাফের ভবিষ্যতও অনিশ্চিত। বিসিসিআই এখনও এই বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেয়নি।

বিসিসিআই দ্রাবিড়ের সাথে থাকা সাপোর্ট স্টাফদের চুক্তি বাড়াতে চাইতে পারে। তবে, তারা নতুন প্রধান কোচের সাথে কাজ করতে আগ্রহী কিনা তা নিয়ে ঐক্যমত্য নাও হতে পারে।

বিসিসিআইকে এই বিষয়ে শীঘ্রই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

বিসিসিআই বেশ কয়েকটি উচ্চ-প্রোফাইল প্রার্থীর সাথে আলোচনা করছে। এই প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন:

ভিভিএস লক্ষ্মণ

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের প্রাক্তন মেন্টর ভিভিএস লক্ষ্মণ, রাহুল দ্রাবিড়ের স্থলাভিষিক্ত হওয়ার শীর্ষ প্রতিযোগী।

লক্ষ্মণ গত দুই বছর ধরে যখন দ্রাবিড়ের বিরতির প্রয়োজন ছিল তখন অস্থায়ী ভিত্তিতে প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এই ব্যবস্থা, লক্ষ্মণকে দলের সিনিয়র খেলোয়াড় এবং উন্নীত প্রতিভা উভয়ের সাথে পরিচিত হওয়ার সুযোগ দিয়েছে।

লক্ষ্মণ একজন দক্ষ ব্যাটিং কোচ হিসেবে পরিচিত। তিনি ভারতীয় দলের ব্যাটিং দক্ষতা উন্নত করতে সাহায্য করেছেন।

তিনি দলের ব্যাটসম্যানদের কৌশলগত জ্ঞান এবং মানসিক শক্তি উন্নত করতে সাহায্য করেছেন।তিনি একজন যোগ্য প্রার্থী।

এমএস ধোনি

তিন বছর আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার পর ধোনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে দূরে রয়েছেন।

তিনি দ্রাবিড়ের স্থলাভিষিক্ত হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেননি। তবে,ধোনি যদি তার মন পরিবর্তন করেন, তাহলে তিনি টিম ইন্ডিয়ার জন্য একটি দুর্দান্ত প্রধান কোচ হতে পারবেন।

তিনি একজন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার এবং একজন দক্ষ কৌশলবিদ। তিনি ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসাবে অনেক সাফল্য অর্জন করেছেন।

ধোনি একজন শক্তিশালী নেতা তিনি ভারতীয় দলের সকল খেলোয়াড়কে ভালোভাবে চেনেন। তিনি তাদের দক্ষতা এবং সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত।

বীরেন্দ্র শেবাগ

বীরেন্দ্র সহবাগ ভারতের সাবেক অধিনায়ক এবং একজন অত্যন্ত অভিজ্ঞ কোচ। তিনি ক্রিকেটে তার নির্ভীক মনোভাবের জন্য বিখ্যাত।

তিনি তার সোজাসাপ্টা কথাবার্তা এবং ম্যাচ জেতার মানসিকতা দিয়ে ভারতের খেলায় স্বাধীনতা ও আগ্রাসন ঢুকিয়ে দিতে পারেন।

ধোনির বিপরীতে, শেবাগেরও আইপিএলে পাঞ্জাব কিংসের প্রাক্তন প্রধান কোচ হিসাবে কোচিংয়ের অভিজ্ঞতা রয়েছে।

তিনি বর্তমানে ভারতীয় দলের ব্যাটিং কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং তিনি ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপের উন্নতি করেছেন।

সহবাগ একজন দক্ষ ব্যাটিং কোচ হিসেবে পরিচিত এবং তিনি ভারতীয় দলের ব্যাটিংকে আরও শক্তিশালী করতে সাহায্য করতে পারেন।

অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার

বিসিসিআই যদি রাহুল দ্রাবিড়ের স্থলাভিষিক্ত হিসাবে একজন বিদেশি কোচ খুঁজেন, তাহলে জিম্বাবুয়ের প্রাক্তন ক্রিকেটার অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার একজন শক্তিশালী প্রার্থী।

ফ্লাওয়ারের কোচিং অভিজ্ঞতা এবং সাফল্য রয়েছে। তিনি ইংল্যান্ডের প্রধান কোচ ছিলেন এবং ২০১৯ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের ফাইনালে দলটিকে নিয়ে গিয়েছিলেন।

তিনি বিশ্বব্যাপী টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির জন্য হেড অফ সাপোর্ট স্টাফ হিসাবেও কাজ করেছেন এবং শিরোপা জিতেছেন।

মাহেলা জয়বর্ধনে

মাহেলা জয়বর্ধনে শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক এবং একজন দক্ষ ব্যাটিং কোচ হিসেবে পরিচিত।

তিনি শ্রীলঙ্কা দলের ব্যাটিং লাইনআপকে পুনর্গঠন করেছিলেন এবং দলটিকে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে উৎসাহিত করেছিলেন।

এর ফলে শ্রীলঙ্কা দল ওডিআই ক্রমের শীর্ষে উঠতে সক্ষম হয়েছিল।তিনি ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা দলের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন

গ্যারি কার্স্টেন

গ্যারি কার্স্টেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক এবং একজন অত্যন্ত অভিজ্ঞ কোচ।

তিনি ২০১১ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকা দলের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং এই সময়ে দলটিকে টেস্ট ক্রমের শীর্ষে নিয়ে এসেছিলেন।

কার্স্টেন একজন দক্ষ ব্যাটিং এবং বোলিং কোচ হিসেবে পরিচিত এবং তিনি ভারতীয় দলের সব বিভাগকেই শক্তিশালী করতে সাহায্য করতে পারেন।

বিসিসিআই এখনও রাহুল দ্রাবিড়ের স্থলাভিষিক্তের জন্য কোনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি। তবে, এই শীর্ষ প্রতিযোগীরা সবাই ভারতীয় দলের জন্য দুর্দান্ত সম্পদ হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *